চুল ঝলমলে সিল্কি করুন খুব সহজেই!

চুল ঝলমলে সিল্কি করুন খুব সহজেই!

ঝলমলে স্বাস্থ্যোজ্বল চুল সবার কাম্য। আর এই সুন্দর, স্বাস্থ্যজ্বল চুল একরাতের মধ্যে পাওয়া সম্ভব নয়। তার জন্য প্রয়োজন দীর্ঘ সময়ের চুল পরিচর্যা। কিন্তু হঠাৎ কোনো অনুষ্ঠানের দাওয়াত পড়ে গেলে, তখন কি আর এত সময় পাওয়া যায় চুলের যত্ন নেওয়ার। তাহলে উপায়? এই সমস্যার সমাধান রয়েছে। আগের রাতে চুলের যত্নে ব্যবহার করতে পারেন কিছু হেয়ারপ্যাক। বিশেষজ্ঞদের মতে রাতে চুলের যত্ন শুধু আপনার সময় বাঁচায় না, এটি চুলের গোড়ায় গোড়ায় পুষ্টি যুগিয়ে থাকে। আসুন জেনে নিই এমন কিছু হেয়ার প্যাক এবং হেয়ার টিপস যা আপনাকে সিল্কি ঝলমলে চুল পেতে সাহায্য করবে।

১। নারকেল তেল

রাতে খুব ভাল করে চুলে নারকেল তেল লাগিয়ে নিন। এরপর একটি চিরুনি দিয়ে মাথা ভাল করে আঁচড়িয়ে নিন। পরের দিন শ্যাম্পু করে ফেলুন। শ্যাম্পু চুল থেকে তেল দূর করে আপনাকে দিবে সিল্কি ঝলমলে চুল।

২। দুধ

একটি স্প্রে বোতলে ১/৪ কাপ ঠান্ডা দুধ এবং কুসুম গরম পানি মিশিয়ে নিন। এবার এটি সম্পূর্ণ চুলে স্প্রে করে নিন। এটি ১০ মিনিট চুলে রেখে দিন। তারপর ঠান্ডা পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। চুল নরম কোমল ঝলমলে হয়ে গেছে।

৩। ডিম

৩টি ডিম, ২ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল অথবা নারকেল তেল এবং ১ টেবিল চামচ মধু ভাল করে মিশিয়ে নিন। চুলে ভাল করে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। কুসুম গরম পানি দিয়ে চুল শ্যাম্পু করে ফেলুন। আরেকটি প্যাক ব্যবহার করতে পারেন। ২টি ডিম, ১/২ কাপ টকদই, ২ টেবিল চামচ বাদাম তেল মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। প্যাকটি যেন ঘন ক্রিমি হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন। ম্যাসাজ করে চুলে লাগান। আধাঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। এটি আপনি আগের দিন গোসলের সময় লাগাতে পারেন।

৪। কন্ডিশনার ব্যবহার

ভেজা চুলে কন্ডিশনার লাগিয়ে নিন। বিশেষ করে চুলের আগার অংশে কন্ডিশনার ভাল করে লাগান। একটি মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে ভাল করে চুল আঁচড়িয়ে নিন। একটি খোঁপা করে ঘুমাতে যান। পরের দিন সকালে চুল ধুয়ে ফেলুন। আর দেখুন আপনার চুল একদম সিল্কি হয়ে গেছে।

৫। টকদই এবং অ্যালোভেরা জেল

অ্যালোভেরা জেলে কিছু পরিমাণে টকদই মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এটি চুলে লাগিয়ে নিন। একটি শাওয়ার ক্যাপ মাথায় লাগিয়ে নিন। সারারাত এভাবে রাখুন। পরের দিন শ্যাম্পু করে ফেলুন। এই প্যাকটিও আপনাকে ঝলমলে স্বাস্থ্যজ্বল চুল পেতে সাহায্য করবে।

চুলে প্যাক ব্যবহার করার পাশপাশি স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার প্রয়োজন রয়েছে।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *